বেহুলার বাসর ঘর কোথায় অবস্থিত

500.00৳ 

সরাসরি কিনতে ফোন করুন: 01622913639

>> সারাদেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি করা হয় !

>> ডেলিভারি খরচ ঢাকার মধ্যে ৬০ ঢাকার বাইরে  ১০০ টাকা !

>> প্রোডাক্ট হাতে পেয়ে চেক করে মূল্য পরিশোধ করতে পারবেন !

>> ডেলিভারি খরচ সাশ্রয় করতে একসাথে কয়েকটি প্রোডাক্ট অর্ডার করুন

570 in stock

SKU: ( 11 ) গোপনাঙ্গের কালো দাগ দূর করার ক্রিম Categories: , Tag:

Description

বেহুলার বাসর ঘর কোথায় অবস্থিত , সুপ্রিয় পাঠক বৃন্দ আজকের আর্টিকেলটিতে আমরা আলোচনা করব বেহুলার বাসর ঘর কোথায় অবস্থিত সে সম্পর্কে আমাদের কাছে যারা জানতে চেয়েছেন এ প্রশ্নটির উত্তর সম্পর্কে তারা অবশ্যই আমাদের আর্টিকেলকে মনোযোগ সহকারে করবেন আশা করি আমাদের আর্টিকেল এর মাধ্যমে বেহুলার বাসর ঘর কোথায় অবস্থিত সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক ।

আর্টিকেলটিতে আমরা কিছু  প্রডাক্ট তুলে ধরেছি প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপন পিকচার তুলে ধরেছে আপনি চাইলে প্রোডাক্টগুলো দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে অর্ডার করে সংগ্রহ করতে পারেন । আরো পড়ুন: ছেলেদের মেয়েদের কন -ডম গুপ্ত –  স্থান মেয়েদের পু -শি  কিনতে – এখনই কিনুন

বেহুলার বাসর ঘর কোথায় অবস্থিত

বেহুলা লক্ষিন্দরের বাসর ঘর একটি প্রাচীন ও ঐতিহাসির স্থাপনা। এটি বগুড়া শহর থেকে ১০কিলোমিটার উত্তরে এবং মহাস্থান গড় থেকে ২ কিলোমিটার দক্ষিণে গোকুল গ্রামে অবস্থিত। স্থানীয়ভাবে এটি বেহুলার বাসর ঘর নামেই অধিক পরিচিত। অনেকে এটাকে লক্ষ্মীন্দরের মেধ বলে থাকেন।

বেহুলা ও লক্ষিন্দরের প্রেম কাহিনী সর্বপ্রথম মনসামঙ্গল কাব্যে উল্লেখ পাওয়া যায়। বেহুলা ও লক্ষিন্দরের ভালোবাসার গল্প গ্রাম-বাংলার মানুষের মুখে মুখে প্রচলিত। বেহুলা ও লখিন্দরের প্রেমগাঁথা অমর এক লোককাহিনী। ধারনা করা হয় খ্রিস্টাব্দ সপ্তম শতাব্দী থেকে ১ হাজার ২০০ শতাব্দীর মধ্যে এটা নির্মান করা হয়। আনুমানিক ১৭২টি কক্ষ আছে এখানে। আরো পড়ুন: ছেলেদের পে-নি  লম্বা করার ঔষধ ৭৫০ টাকা কিনতে ক্লিক করুন  – এখনই ঔষধ কিনুন

বেহুলার বাসর ঘর একটি অত্যান্ত সুন্দর প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন। গবেষকদের মতে, এ মনুমেন্ট ৮০৯ থেকে ৮৪৭ খ্রিস্টাব্দে দেবপাল নির্মিত একটি বৈদ্যমঠ। এ স্তূপটি বাসর ঘর নয়। এ স্তূপটির পশ্চিমাংশে আছে বাসর ঘরের স্মৃতিচিহ্ন। পূর্বাংশে রয়েছে চৌবাচ্চাসদৃশ একটি স্নান ঘর।

ব্রিটিশরা ১৯৩৪-৩৬ সালের দিকে প্রথম এখানে খনন কাজ চালায়। এরপর এই স্থানটি অখননকৃত অবস্থায়ই থেকে যায়। ফলে এটা যে আসলে কি ছিল তা এখনও অজানা। তবে বেহুলা লক্ষিন্দরের বাসরঘরের ইতিহাসটাই প্রচলিত হয়ে গেছে।পুরুষের ও মেয়েদের সে- ক্স বৃদ্ধি করার হোমিও ঔষধ কিনতে ক্লিক করুন – এখনি কিনুন

কালকেউটের ফণায় নাচছে লখিন্দরের স্মৃতি, বেহুলা কখনো বিধবা হয় না এটা বাংলার রীতি। ভেসে যায় ভেলা, এবেলা ওবেলা একই শব দেহ নিয়ে আগেও মরেছি আবার মরবো প্রেমের দিব্যি দিয়ে। গায়ক কবীর সুমনের অত্যন্ত জনপ্রিয় ‘জাতিস্বর’ গানটি যারা শুনেছেন তাঁদের অনেকেই কাছেই উপরের কথাগুলো পরিচিত। তবে আমরা অনেকেই জানি না বেহুলা ও লক্ষিন্দরের বাসর ঘর আমাদের বগুড়া সদরের গোকুল গ্রামে অবস্থিত।

আমাদের আর্টিকেলটি সম্পর্কে আপনার যাবতীয় প্রশ্ন কিংবা জিজ্ঞাসা থাকলে আপনি কমেন্ট এর মাধ্যমে আমাদেরকে লিখে জানাতে পারেন আপনার মূল্যবান প্রশ্নের উত্তর কিংবা মন্তব্য গুলো অবশ্যই লিখে ফেলুন ।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “বেহুলার বাসর ঘর কোথায় অবস্থিত”

Your email address will not be published. Required fields are marked *